Home » পরিচিতি » পাঠ্যক্রমের মূলনীতি

পাঠ্যক্রমের মূলনীতি

আল্লাহ্ পাক সব জ্ঞানের-ই উৎস,  যার সাক্ষ্য দেয় পবিত্র কুরআন। এরশাদ হচ্ছে: -وَعَلَّمَ ادَمَ الأَسْمَاءَ كُلّهَا আদম আ.-কে আল্লাহ্ পাক সব নাম শিখিয়েছেন। তাই জ্ঞানের শাখা-প্রশাখা যা আমরা বর্তমানে দেখতে পাই তার সম্পর্ক রয়েছে আল্লাহ্ পাকের কিতাবের সাথে। তাই এরশাদ হয়েছে – وَنَزَّلْنَاعَلَيْكَ الكِتَابَ تِبْيَانًا لِكُلِّ شَىءٍ  অর্থাৎ আমি আপনার প্রতি কিতাব নাযিল করেছি, যা হচ্ছে প্রত্যেক বস্তুর সুস্পষ্ট বর্ণনা। তাই দারুল ইহ্সান ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা ড. সৈয়দ আলী আশরাফ (রহ.) উক্ত শাখা-প্রশাখাগুলোকে প্রধানত তিনভাগে বিভক্ত করেছেন। যথা- (১) ধর্ম বিজ্ঞান (২) মানব বিজ্ঞান (৩) প্রকৃতি বিজ্ঞান। এ শাখাগুলোর সবই ধর্মবিজ্ঞানের মাধ্যমে জ্ঞানের প্রকৃত উৎস আল্লাহ্ পাকের সাথে সম্পর্কিতÑ যা তিনি নিম্নবর্ণিত আকারে সাজিয়েছেন:

অর্থাৎঃ মানুষ আল্লাহর সৃষ্টি। তাই সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ্ পাকের সাথে তার যে সম্পর্ক রয়েছে তা ধর্মবিজ্ঞানের মাধ্যমে জানতে হবে। তারপর, যেহেতু মানুষ স্বভাবগতভাবে সামাজিক, একাকী বসবাস করতে পারে না; সেহেতু তাঁর সাথে অন্য মানুষের সম্পর্ক কি হবে, কিভাবে হবে তা মানব বিজ্ঞানের মাধ্যমে জানতে হবে। এবং যেহেতু মানুষ অন্যান্য সৃষ্টিকে তার নিজ প্রয়োজনে ব্যবহার করে তাই সে সম্পর্কে তাকে প্রকৃতি বিজ্ঞানের মাধ্যমে জানতে হবে। আর এমনভাবে তাকে মানব বিজ্ঞান ও প্রকৃতি বিজ্ঞান জানতে হবে যাতে সে সবকিছুতেই সৃষ্টিকর্তার কুদরত ও দয়ার প্রমাণ খুঁজে পায়। অর্থাৎ ধর্মবিজ্ঞানই হবে মানব বিজ্ঞান ও প্রকৃতি বিজ্ঞানের প্রকৃত মাপকাঠি।

তাই যারা কুরআন-হাদীসের জ্ঞানে উন্নত জ্ঞানী হবে তাদের জ্ঞানের অন্যান্য শাখা সম্পর্কেও ধারণা থাকা প্রয়োজন। এ প্রয়োজনীয়তাকে সামনে রেখে মাদ্রাসার পাঠ্যক্রম তৈরি করা হয়েছে, যা প্রতিষ্ঠাতা ড. সৈয়দ আলী আশরাফ (রহ.) এর শিক্ষাদর্শন ও জাতীয় শিক্ষানীতির আলোকে সাজানো।

(১) ধর্মবিজ্ঞান (Religious Sciences) : তাফসীরুল কুরআন, হাদীস, ফিক্হ, উসূলে ফিক্হ, আরবি সাহিত্য, আরবি কথোপকথন, আকীদা, বালাগাহ্, ইসলামী সংস্কৃতি ও দর্শন।

(২) মানব বিজ্ঞান (Human Sciences) : বাংলা, ইংরেজি, ভূগোল, ইতিহাস, সমাজ বিজ্ঞান ও অর্থনীতি।

(৩) প্রকৃতি বিজ্ঞান (Natural Sciences): গণিত, বিজ্ঞান, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ইত্যাদি।